• শুক্র. মার্চ ৫, ২০২১

অনুসন্ধানবার্তা

অজানাকে জানতে চোখ রাখুন

ঠাকুরগাঁওয়ে পেঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধির প্রভাব পড়েছে বীজের বাজারেও

Byঅনুসন্ধান বার্তা

অক্টো ১১, ২০২০
0 0
Read Time:5 Minute, 17 Second

আপেল মাহমুদ, ঠাকুরগাঁও থেকে :

ঠাকুরগাঁও জেলায় পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধির প্রভাব পড়েছে বীজের বাজারেও। গত বছরের চেয়ে বীজের দাম তিন-চার গুণ বেড়ে গেছে। এ অবস্থায় পেঁয়াজের আবাদ করতে গিয়ে বিপাকে পড়েছেন ঠাকুরগাঁও জেলার কৃষকেরা।

সাম্প্রতিক সময়ে পেঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধিতে চরম ভোগান্তির শিকার হয়েছেন সাধারণ মানুষ। ঠাকুরগাঁওসহ সারাদেশে একযোগে পেঁয়াজের দাম বাড়িয়ে দেয় একশ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী চক্র। শাক-সবজিসহ সব নিত্য পণ্যের দাম নাগালের বাইরে চলে যাওয়ার পর পেঁয়াজের ঝাঁজে রীতিমতো নাকানি-চুবানি খেতে হলো সাধারণ মানুষকে। করোনা মহামারীর কারণে আর্থিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত সব শ্রেণীর মানুষের ওপর বাড়তি চাপ সৃষ্টি করেছে পেঁয়াজের অগ্নিমূল্য। এখন পর্যন্ত পেঁয়াজের দর স্বাভাবিক পর্যায়ে ফিরে আসেনি। বেশি দামেই কিনতে হচ্ছে পেঁয়াজ।

সাম্প্রতিক এই সঙ্কটের কারণে আশা করা হচ্ছিল, দেশের কৃষি বিভাগ সামনের মৌসুমে বেশি করে পেঁয়াজ চাষের বিষয়ে কৃষকদের উৎসাহিত করবে, যাতে এবারের মতো যে কোন পরিস্থিতিতে পড়তে না হয়।

জানাযায়, গত দু’বছর আগে যে পেঁয়াজ বীজের দাম ছিল কেজি প্রতি ৭০০-৮০০ টাকা এবং গত বছর যা ছিল ১২০০ থেকে ১৫০০ টাকা, সেই পেঁয়াজ বীজের দাম এবার ইতোমধ্যে উঠে গেছে সাড়ে ৪ হাজার থেকে ৫ হাজার হাজার টাকায়।

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে পেঁয়াজ বীজের বিক্রেতারা প্রতি কেজির দাম হাঁকছেন সাড়ে ৪ হাজার টাকা থেকে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত। চড়া দামের কারণে এবার যেসব কৃষক বেশি পরিমাণ জমিতে পেঁয়াজ চাষ করবেন বলে ভাবছিলেন, তারা আর ভরসা পাচ্ছেন না। এত বেশি দামে আবাদ করার পর তা লাভজনক হবে কি না, সে ব্যাপারেও তারা সন্দিহান। অথচ পেঁয়াজ চাষের মৌসুম এসে গেছে।

কিন্তু মৌসুম চলে এলেও বীজের চড়া দাম কৃষকদের সব উৎসাহ-উদ্দীপনা দমিয়ে দিচ্ছে। কৃষক বেশি জমিতে আবাদ করার ব্যাপারে আগ্রহী হওয়ায় বাজারে পেঁয়াজ বীজের চাহিদা বেড়েছে। কিন্তু ব্যবসায়ীরা বলছেন, চাহিদা বাড়লেও এবার সরবরাহ খুবই কম।
রুহিয়ার বীজ বিক্রেতারা ঠাকুরগাঁও শহর, পঞ্চগড় জেলার আটোয়ারী উপজেলাসহ বিভিন্ন জায়গা থেকে পেঁয়াজ বীজ এনে তা স্থানীয় বাজারে বিক্রি করেন। এবার সেখানে চাহিদা মতো সরবরাহ নেই। এই সুযোগ নিচ্ছে ব্যবসায়ীদের একটি চক্র। তারা দাম বাড়িয়ে দিচ্ছেন।

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষ্ণ রায় জানান, এবার রুহিয়া থানাধীন পাঁচ ইউনিয়নে ০৮ হেক্টরসহ ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলায় ১৪০ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজ আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। সে ক্ষেত্রে প্রতি বিঘা জমিতে পেঁয়াজ বীজের প্রয়োজন হবে এক কেজি করে।

তবে বীজের বাড়তি দামের কারণে শেষ পর্যন্ত চাষের এই লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হবে কি না তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। দাম বাড়ার শঙ্কায় অনেক চাষি আগে থেকেই বীজ কিনে রাখছেন এমনটাও শোনা যাচ্ছে। কিন্তু তা দু’চারজনের ক্ষেত্রে এটা সত্যিও হতে পারে।

তবে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যোগে পেঁয়াজ চাষের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক রাখা বা তার আরো সম্প্রসারণ জরুরি ছিল। দেশে যেসব ফসলের ঘাটতি রয়েছে সেগুলোর উৎপাদন বাড়াতে চাষিদের উৎসাহিত করার দায়িত্ব এই বিভাগেরই। কিন্তু সে রকম কোনো উদ্যোগ, যেমন কৃষকদের পেঁয়াজ চাষে উদ্বুদ্ধ করতে উঠান বৈঠক বা সমাবেশ করেতে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তেমন কোন কর্মকান্ড নজরে পড়িনি।

Happy
Happy
0 %
Sad
Sad
0 %
Excited
Excited
0 %
Sleepy
Sleepy
0 %
Angry
Angry
0 %
Surprise
Surprise
0 %
error: Content is protected !!