• শনি. মার্চ ৬, ২০২১

অনুসন্ধানবার্তা

অজানাকে জানতে চোখ রাখুন

বগুড়ায় পাসপোর্ট অফিসে সীমাহীন দূর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ

Byঅনুসন্ধান বার্তা

অক্টো ৭, ২০২০
0 0
Read Time:4 Minute, 8 Second

বগুড়া জেলা প্রতিনিধি:

বগুড়া আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে সীমাহীন দূর্নীতি, অনিয়ম ও হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। অর্থ না দিলে কাগজের ক্রুটি বের করে হয়রানি করা হচ্ছে। এমনকি সত্যায়ন কারীকে ডেকে আনতে বাধ্যও করা হচ্ছে।

আবার টাকা দিলে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র না থাকলেও (এমনকি নিজ জেলা না হলেও) পাসপোর্ট পাইয়ে দেওয়ার ব্যবস্থাও করা হয়। ভুক্তভোগির অভিযোগের প্রেক্ষিতে এসব তথ্য জানাগেছে।

ভুক্তভোগিদের অভিযোগ, বগুড়া পাসপোর্ট অফিসের সহকারি পরিচালক আজবাউল আলম যোগদানের পর থেকেই সেবা নিতে আসা মানুষদের চরম হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে।

অনুসন্ধানে জানাগেছে, শিবগঞ্জ উপজেলার বাদিয়ারচর গ্রামের ইলিয়াছ তার সকল কাগজপত্র জমা করে ই-পাসপোর্টের জন্য অনলাইনে আবেদন করেন। গত ২৭ সেপ্টেম্বর বগুড়া আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে তার ফিঙ্গার প্রিন্ট এবং ছবি তোলার কথা ছিল। কিন্ত সকাল থেকে কাগজপত্রের নানা ক্রটি বের করে হয়রানি করা হচ্ছিল। অবশেষে বিকেল ৪টার দিকে কাগজপত্রের কোন ভুল নেই প্রমানিত হওয়ায় তার ফিঙ্গার এবং ছবি নেওয়া হয়।

তবে কেন এভাবে হয়রানি করা হচ্ছে তার সদুত্তর দিতে পারেননি বগুড়া পাসপোর্ট অফিসের সহকারি পরিচালক আজবাউল আলম।

আব্দুস সবুর খান গত ২ সেপ্টেম্বর নিজ জেলা জয়পুরহাট থেকে বগুড়ায় পাসপোর্ট করেছেন। ফাইলে তার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ছাড়াই তাঁর পাসপোর্ট হয়েছে।

মো. হাসিব হোসেন বয়স ২৩ বছর। ই-পাসপোর্টে ১৮ বছর পর জাতীয় পরিচয়পত্র বাধ্যতামূলক। কিন্তু তার আইডি না থাকলেও পাসপোর্ট দেওয়া হয়েছে। হেলেনা বিবি তিনি পাশ্বের্র ইউনিয়নের পরিচিত চেয়ারম্যানের কাছ থেকে সত্যায়িত করে কাগজপত্র জমা করেছেন। কিন্তু তার সত্যায়নকারিকে ডেকে আনতে বাধ্য করা হয়েছে।

মো. আহসান হাবিব গত ২ সেপ্টেম্বর তার পাসপোর্টের ফাইল জমা করেন। কিন্ত অন লাইনে জন্ম সনদ না থাকলেও তার পাসপোর্ট করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।
এমন নানা অনিয়ম এবং টাকার বিনিময়ে পাসপোর্ট মিলছে বগুড়া আঞ্চলিক এই পাসপোর্ট অফিসে। এছাড়া বগুড়া আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের সহকারি পরিচালক আজবাউল আলমের বিরুদ্ধে রাজশাহী পাসপোর্ট অফিসে চাকুরী করাকালীন দুদকে মামলা হওয়ার পর থেকে বেশীরভাগ সময় অফিসে অনুপস্থিত থাকছেন। এতে করে মানুষের হয়রানির মাত্রা আরো বেড়ে গেছে।

তবে এ ব্যাপারে সহকারি পরিচালক আজবাউল আলম তার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি সঠিকভাবে কাজ করে যাচ্ছি। তবে কেউ আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা তথ্য উপস্থাপন করেছে। তা সঠিক নয় বলে তিনি দাবি করেন।

এবিষয়ে বগুড়া জেলা প্রশাসক মো. জিয়াউল হক জানান, পাসপোর্ট অফিসে কোন অনিয়ন ও দূর্ণীতি হলে অবশ্যই খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Happy
Happy
0 %
Sad
Sad
0 %
Excited
Excited
0 %
Sleepy
Sleepy
0 %
Angry
Angry
0 %
Surprise
Surprise
0 %
error: Content is protected !!