• মঙ্গল. মার্চ ৯, ২০২১

অনুসন্ধানবার্তা

অজানাকে জানতে চোখ রাখুন

বগুড়ায় শাশুড়ির শতকোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার মামলায় সেই আ’লীগ নেতা স্ত্রীসহ কারাগারে

Byঅনুসন্ধান বার্তা

অক্টো ২৫, ২০২০
0 0
Read Time:5 Minute, 32 Second

বগুড়া জেলা প্রতিনিধি :

বগুড়ায় শ্বাশুড়ির শতকোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার মামলায় নন্দীগ্রাম উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন রানা এবং তার স্ত্রীকে জেল হাজতে প্রেরন করেছে বগুড়ার চীফ জুডিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত।

রবিবার (২৫ অক্টোবর) বগুড়ার চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট রবিউল আওয়াল আদলতে আওয়ামীলীগ নেতা আনোয়ার হোসেন রানা এবং তার স্ত্রী আকিলা শরীফা সুলতানা জামিনের আবেদন করলে ম্যাজিষ্ট্রেট জামিন না মঞ্জুর করে তাদেরকে জেল হাজতে প্রেরন করেছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেন বাদী পক্ষের আইনজীবী এ্যাড. রেজাউল করিম মন্টু। এর আগে গত ৫ অক্টোবর আনোয়ার হোসেন রানা তার স্ত্রী সহ ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা করে শ্বাশুরী দেলোয়ারা বেগম।

মামলার বাদী ভুক্তভোগী দেলওয়ারা বেগম বগুড়া সদরের কাটনারপাড়া এলাকার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মৃৃত শেখ সরিফ উদ্দিনের স্ত্রী। গত ৫ বছর ধরে দেখাশোনার অজুহাতে তার কাছেই ছিলেন মেয়ে-জামাই। তারা পরিবারকে দেখাশোনার অজুহাতে অজুহাতে শাশুড়িকে ভুলিয়ে-ভালিয়ে আবার কখনো জিম্মি করেন রানা।

ওই অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, স্বামীর মৃত্যুর পর ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে স্বামীর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সরিফ বিড়ি ফ্যাক্টরী পরিচালনা করছিলেন রানা। এই প্রতিষ্ঠানের পরিচালক হিসেবে ছিলেন তার পাঁচ মেয়ে আকিলা সরিফা সুলতানা, মাহবুবা সরিফা সুলতানা, নাদিরা সরিফা সুলতানা, কানিজ ফাতিমা ও তৌহিদা সরিফা সুলতানা।

অংশিদারি প্রতিষ্ঠান হিসেবে তারা শহরের শাকপালা ও চারমাথা এলাকায় সরিফ সিএনজি লিমিটেড নামের দুটি ফিলিং স্টেশন এবং নবাববাড়ি রোডে দেলওয়ারা-শেখ সরিফ উদ্দিন সুপার মার্কেট পরিচালনা করে আসছিলেন।

দেলওয়ারা বেগম আরো অভিযোগ করেন, শারীরিক অসুস্থতা ও বার্ধক্যজনিত কারণে জামাই আনোয়ার হোসেন রানা ও মেয়ে আকিলা সরিফা সুলতানাকে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান দেখাশোনার মৌখিক অনুমতি দেন।

কিন্তু এক পর্যায়ে তাকে অস্ত্রের মুখে জম্মি করে ফাঁকা স্ট্যাম্প ও ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠানের ব্যাংক চেক ও এফডিআরসহ বিভিন্ন নথিপত্রে তার সই নেন জামাই। এরপর তার নিজের নামীয় ব্যাংক একাউন্ট থেকে নগদ টাকাসহ এফডিআর ভাঙিয়ে প্রায় ৫০ কোটি টাকারও বেশি টাকা তুলে নেন রানা।

২০১৫ সালের ১ জুন থেকে এই বছরের ২১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এই অর্থ তুলে আত্মসাত করেছেন মেয়ে-জামাই। এরই বাইরে একই সময়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও তার নামীয় ব্যাংক হিসাব থেকে আরো ৫০ লাখ টাকা তুলে আত্মসাৎ করেন।

আর তাদের এই কাজে সহায়তা করেছেন সরিফ বিড়ি ফ্যাক্টরীর ব্যবস্থাপক কাম ক্যাশিয়ার নজরুল ইসলাম (৩৮), ফিলিং স্টেশনের ব্যবস্থাপক হাফিজার রহমান (৫০) এবং সুপারমার্কেটের ব্যবস্থাপক তৌহিদুল ইসলাম (৫০)।

দেলওয়ারা বেগম জানান, জামাই আনোয়ার হোসেন রানা পিস্তল উঁচিয়ে তাকে হত্যার হুমকি দিচ্ছিলেন। এরই মাঝে গত ২১ সেপ্টেম্বর বাসার আলমারি-সিন্দুক থেকে নগদ অর্থ, ব্যাংকের চেক, এফডিআর এবং ব্যবসায়ীক সকল নথিপত্র নিয়ে চলে যায়।

এর আগে গত ২৪ শে সেপ্টেম্বরে আনোয়ার হোসেন রানার বিরুদ্ধে জেলা পুলিশ সুপার বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছিল মরহুম সরিফ উদ্দিনের চার মেয়ে মাহবুবা সরিফা সুলতানা, নাদিরা সরিফা সুলতানা, কানিজ ফাতিমা ও তৌহিদা সরিফা সুলতানা।

তাদের অভিযোগ ছিল অসুস্থ বিধবা মা দেলওয়ারা বেগমকে জিম্মি করে, ভুল বুঝিয়ে এবং রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছেন আনোয়ার হোসেন রানা।

Happy
Happy
0 %
Sad
Sad
0 %
Excited
Excited
0 %
Sleepy
Sleepy
0 %
Angry
Angry
0 %
Surprise
Surprise
0 %
error: Content is protected !!