• মঙ্গল. এপ্রি ২০, ২০২১

অনুসন্ধানবার্তা

অজানাকে জানতে চোখ রাখুন

ইতালিয়ান লাউ চাষে ধুনটের মোস্তাফিজুরের সাফল্য

Byঅনুসন্ধান বার্তা

মার্চ ২১, ২০২১
0 0
Read Time:4 Minute, 35 Second

ইমরান হোসেন ইমন, অনুসন্ধানবার্তা :

পেশায় ছিলেন ট্রাক চালক। জীবিকার তাগিদে ৫ বছর আগে পাড়িজমান ইরাকে। কিন্তু করোনাকালীন সময়ে দেশে ফিরে আসেন মোস্তুাফিজুর। দেশে ফিরে কোন কর্ম না পেয়ে নিজের পৈত্রিক ২ বিঘা জমি সহ আরো ৬/৭ বিঘা জমি বন্ধক নিয়ে শুরু করেন চাষাবাদ। তথ্য প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে ইতালিয়ান জাতের মিষ্টি লাউ চাষে সাফল্য বয়ে এনেছেন বগুড়ার ধুনট উপজেলার ফরিদপুর গ্রামের বিদেশ ফেরত যুবক মোস্তাফিজুর রহমান।

মাত্র এক বিঘা জমিতে ৩০ হাজার টাকা খরচ করে ইতালিয়ান জাতের মিষ্টি লাউ চাষ করেন তিনি। এপর্যন্ত তিনি প্রায় ১০ টন মিষ্টি লাউ ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা বিক্রি করেছেন। দৃষ্টিনন্দন ও অকর্ষনীয় হওয়ায় ক্রেতাদের কাছে পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ এই লাউয়ের অনেক চাহিদাও রয়েছে।
শনিবার ধুনট বাসষ্ট্যান্ড এলাকার খেলার মাঠের হাটে মোস্তাফিজুরকে দেখা যায়, তার নিজের চাষ করা ইতালিয়ান জাতের মিষ্টি লাউয়ের পসরা সাজিয়ে বসে রয়েছেন। বিক্রিও ভাল করেছেন।

মোস্তাফিজুর রহমান জানান, দেশে ফিরে এসে চাষাবাদ শুরু করেছেন। ইন্টারনেন্টের মাধ্যমে গত ৪ মাস আগে ঢাকা থেকে ৬৬০০ টাকায় ইতালিয়ান এই মিষ্টি লাউয়ের বীজ সংগ্রহ করেছেন। এরপর তিনি এক বিঘা জমিতে প্রায় ১ হাজার ৩০০ পিস বীজ রোপন করেন। প্রায় সাড়ে তিন মাস মেয়াদকালের এই লাউ চাষে তেমন কোন রোগবালাই নেই। তাই ফলনও ভাল পেয়েছেন। প্রতিটি গাছেই ফলন ধরেছিল। তবে মাটিতে এই মিষ্টি লাউ চাষ করলে পথিথিন দিয়ে চাষ করতে হয়।

তাই এজন্য তার আরো খরচ হয়েছে প্রায় ৯ হাজার টাকা। এছাড়াও শ্রমিক, সার ও কীটনাশক সহ মোট প্রায় ৩০ হাজার টাকা খরচ করেছেন। আর তিনি লাউ বিক্রি করেছেন প্রায় দেড় লাখ টাকারও উপরে। তবে মোস্তাফিজুর রহমান নিজেই হাটে-বাজারে লাউ নিয়ে খুচরা ও পাইকারী বিক্রি করায় তার লাভটাও একটু বেশি হয়েছে। তবে এজন্য তার পরিবহন খরচও হয়েছে আরো ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা। কিন্তু তারপরও সফল হয়েছেন এই চাষি।

ধুনটে হাটে ইতালিয়ান লাউ ক্রেতা চিকাশী গ্রামের কৃষক মন্তাজ আলী বলেন, লম্বা আকৃতির দৃষ্টিনন্দন এই লাউ দেখে ছেলের বায়নাতে ৪ কেজি ওজনের একটি লাউ ত্রিশ টাকায় ক্রয় করেছি। যা দেশি লাউ হলে তার ডাবল টাকা দিয়ে কিনতে হতো। তবে এই লাউ চাষে কৃষকদের উদ্ধুদ্ধ করলে এবং তাদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করলে কৃষকেরা লাভবান হতে পারবেন।

ফরিদপুর গ্রামের পাশ^বর্তী গাবতলি এলাকার কৃষক রোকন তালুকদার জানান, তিনি ৫ হাজার টাকা দিয়ে টাঙ্গাইল থেকে ইতালিয়ান মিষ্টি লাউয়ের বীজ সংগ্রহ করে ৫৫ শতক জমিতে রোপন করেছেন। তিনিও ভাল ফলন পেয়েছেন।

ধুনট উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মশিদুল হক বলেন, এই উপজেলার মাটি লাউ চাষের জন্য খুবই উপযোগি। তবে ইতালিয়ান লাউ চাষে কৃষকেরা অনেক লাভবান হতে পারবেন। তাই কৃষকেরা যে কোন পরামর্শ বা সহযোগি চাইলে তা অবশ্যই বাস্তবায়ন করা হবে।

Happy
Happy
0 %
Sad
Sad
0 %
Excited
Excited
0 %
Sleepy
Sleepy
0 %
Angry
Angry
0 %
Surprise
Surprise
0 %
error: Content is protected !!